Breaking News

লতিফ সিদ্দিকীর কারণে আমি বঙ্গবন্ধুকে পেয়েছি-- বঙ্গবীর কাদের সিদিকী

আওয়ামী লীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং সাবেক বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী বড় ভাই আবদুল লতিফ সিদ্দিকীকে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করলেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি কাদের সিদ্দিকীর, বীর উত্তম। বৃহস্পতিবার দুপুরে তাঁরা বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে আটটার দিকে ৩০ থেকে ৩৫টি প্রাইভেট ও মাইক্রোবাসের একটি বহর নিয়ে ঢাকা থেকে কাদের সিদ্দিকী ও আবদুল লতিফ সিদ্দিকী টুঙ্গিপাড়ার উদ্দেশে রওনা দেন। কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের প্রায় শতাধিক নেতাকর্মী এই সফরে অংশ নেন।

দুপুরের দিকে কাদের সিদ্দিকী ও তার বড় ভাই লতিফ সিদ্দিকী নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং মোনাজাত করেন। এরপর তিনি বঙ্গবন্ধুর সমাধির ভেতরে যোহরের নামাজ আদায় করেন। সেখান থেকে সার্কিট হাউসে তাঁরা বিশ্রাম নেন এবং আসরের নামাজ পড়ে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেন।
সফরে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সদস্য কাদের সিদ্দিকীর সহধর্মিনী নাসরিন সিদ্দিকী, কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমান খোকা, বীর প্রতীক, সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, দলটির সদস্য কাদের সিদ্দিকীর আরেক সহোদর শামীম আলম মনসুর আজাদ সিদ্দিকী অংশ নেন।

আগামী জাতীয় সংসদের নির্বাচনের আগে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে কাদের সিদ্দিকীর সঙ্গে তাঁর ভাই আবদুল লতিফ সিদ্দিকীর শ্রদ্ধা নিবেদনের বিষয়টি নিয়ে রাজনৈতিক মহলে ব্যাপক আলোচনা চলছে। কাদের সিদ্দিকী প্রতিবছর বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। কিন্তু এবার তাঁর সঙ্গে বড় ভাই আওয়ামী লীগের সাবেক নেতা আবদুল লতিফ সিদ্দিকী একসঙ্গে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

টুঙ্গিপাড়া সফরের বিষয়ে জানতে চাইলে কাদের সিদ্দিকী বলেন, বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে আমি রাজনীতি করতে যাইনি।

তিনি আমার কাছে রাজনীতির ঊর্ধ্বের মানুষ। সব সময় আমি যে কারণে যাই এবারও সে কারণেই বঙ্গবন্ধু সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাতে গিয়েছিলাম। 

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু আমার প্রাণ, আমার অস্তিত্ব। তাঁকে হারিয়ে আমি সব হারিয়েছি, আমি এবং আমার পরিবার সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। 

বড় ভাই লতিফ সিদ্দিকীকে নিয়ে একসঙ্গে শ্রদ্ধা নিবেদনের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, লতিফ সিদ্দিকী আমার রক্ত, আমার নেতা।

লতিফ সিদ্দিকীর কারণে আমি বঙ্গবন্ধুকে পেয়েছি। আমি আমার জীবনে কাউকে অস্বীকার করি না। 
সফরটি তাহলে অরাজনৈতিক কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটি রাজনৈতিক সফর তবে আমি রাজনীতি করতে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে যাইনি।

আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের জোটে যাচ্ছেন- সফরটি এমন ইঙ্গিত কি না এ প্রশ্নের জবাবে কাদের সিদ্দিকী বলেন, সেটি পরে বলব, আজ এ পর্যন্তই। 

আগামী ৩০ আগস্ট টাঙ্গাইল পৌর উজানে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে। ওই আলোচনা সভায় জাতীয় রাজনীতিকে নেতৃবৃন্দ, বরেণ্য ব্যক্তিবর্গ, ৭৫-প্রতিরোধযোদ্ধারা উপস্থিত থাকবেন বলেও দলের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

সখীপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শওকত শিকদারের কাছে সফরটি নিয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, লতিফ সিদ্দিকী এক সময় আওয়ামী লীগ করতেন। তিনি বঙ্গবন্ধুর ডাকে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন। ভাইয়ের সঙ্গে বঙ্গবন্ধু সমাধিতে তিনি যেতেই পারেন, এখানে কোনো রাজনীতি দেখি না। 

টাঙ্গাইলে ব্যাপক আলোচনা রয়েছে কাদের সিদ্দিকী আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের জোটে ভিড়ছেন। কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের স্থানীয় নেতাকর্মীরাও বলছেন একই কথা।

Type and hit Enter to search

Close