সখীপুরে টাকার ব্যাগ ছিনতাইয়ের ঘটনায় আটক ১

নিজ দোকানে একটি ব্যাগে ব্যবসায়ী আবদুর রহিমের রাখা ১ লাখ ৫৭ হাজার টাকা নিয়ে মোটরসাইকেলে পালানোর চেষ্টা করেন তিন ব্যক্তি। তাঁদের মধ্যে দুজন পালাতে পারলেও একজনকে ধাওয়া করে ধরে ফেলেন স্থানীয় ব্যক্তিরা। এরপর তাঁকে চাপ প্রয়োগ করে ছিনতাই হওয়া টাকা বিকাশে ফেরত আনান স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে উপজেলার বহুরিয়া ইউনিয়নের কালমেঘা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এরপর বিকেলে ব্যবসায়ী আবদুর রহিম বাদী হয়ে সখীপুর থানায় একটি মামলা করেন।

গ্রেপ্তার ব্যক্তির নাম জাকির হোসেন (২৭)। তিনি পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার হেমরাজপুর গ্রামের তেজেম মল্লিকের ছেলে। পুলিশ জানিয়েছে, জাকির কয়েক বছর ধরে ঢাকার আশুলিয়া এলাকায় বসবাস করছেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে ছিনতাই-চুরি-ডাকাতির মতো অপরাধে জড়িত।

বহুরিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরে আলম বলেন, আবদুর রহিম বাড়িতে রাখা ১ লাখ ৫৭ হাজার টাকা একটি হাতব্যাগ নিয়ে সকাল ১০টার দিকে কালমেঘা চৌরাস্তা বাজারের নিজ দোকানে আসেন। এসময় একটি মোটরসাইকেলে করে অচেনা তিন ব্যক্তি এসে পাঁচ লিটার পেট্রল চান এবং দোকানদারকে পেট্রলের দাম হিসেবে ৫০০ টাকার একটি নোট দেন। তাঁদের অবশিষ্ট টাকা ফেরত দিতে গিয়ে দোকানদার তাঁর টাকাভর্তি হাতব্যাগটি পাশে রাখেন। 

এ সময় ওই তিন ব্যক্তি হাতব্যাগ নিয়ে মোটরসাইকেলে করে পালানোর চেষ্টা করেন। টাকা নিয়ে দুজন মোটরসাইকেলে উঠতে পারলেও আরেকজন উঠতে না পেরে দৌড় দেন। আবদুর রহিমের চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে ওই ব্যক্তিকে ধাওয়া করে ধরে ফেলেন।স্থানীয় ব্যক্তিরা জানান, পরে বাজারের ব্যবসায়ীরা চেয়ারম্যান নুরে আলমকে ডেকে আনেন। 

তিনি এসে আটক ব্যক্তিকে মারধরের ভয় দেখিয়ে টাকা উদ্ধারের জন্য চাপ দেন। একপর্যায়ে পালিয়ে যাওয়া দুজন আবদুর রহিমের বিকাশ অ্যাকাউন্টে ছিনতাই হওয়া টাকা ফেরত দেন। এরপর আটক ব্যক্তিকে পুলিশে দেন চেয়ারম্যান।সখীপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মোহাম্মদ আলী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযুক্ত জাকির হোসেনকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় ব্যবসায়ী আবদুর রহিম বাদী হয়ে বিকেলে একটি মামলা করেছেন।

সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল করিম বলেন, পালিয়ে যাওয়া দুজনকেও গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

buttons=(Accept !) days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !
To Top