শনিবার, ৮ জানুয়ারী, ২০২২

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মোরগও লড়াই করে বাঁচে

সরকার পতনের ঘোষণা দিয়েছেন সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জেলা বিএনপি আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শনিবার বিকেলে এ ঘোষণা দেন ব্যারিস্টার রুমিন।

তিনি বলেন, ‘ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মাটি থেকে সরকারের পতনের ঘোষণা দিচ্ছি। এখান থেকেই ৫২ সালে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করা হয়েছিল, আন্দোলন করে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে বাংলাকে প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছিল। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মাটিতে ১৪৪ ধারা কাজ করে না। এখানকার মানুষকে ১৪৪ ধারা দিয়ে আটকে রাখতে পারবেন না।’

সমাবেশে রুমিন বলেন, ‘দেশনেত্রী বেগম খালেদা ও উনার ছেলে তারেক রহমানকে ভয় পায় সরকার। তাই ধীরে ধীরে খালেদা জিয়াকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে সরকার। কিন্তু জনগণ জেগে উঠেছে। যতদূর চোখ যায় কেবল বিএনপির নেতাকর্মী দেখা যায়।’

বিএনপি পুলিশ-প্রশাসনকে ভয় পায় না জানিয়ে রুমিন বলেন, ‘সমাবেশে আসার পথে আমাকে বারবার বাধা দেয়া হয়েছে। সমাবেশ ঘিরে আমাদের নেতাদের আটক করে রাখা হয়েছে। কর্মীদের বাড়িতে তল্লাশি চালানো হচ্ছে। কিন্তু এভাবে আমাদের কেউ দমিয়ে রাখতে পারবে না।’

প্রধামন্ত্রী শেখ হাসিনা জনগণের সমর্থন ছাড়াই গদিতে আছেন জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘আপনারা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মাটি দেখে যান। আমাদের সমর্থন দেখে যান। এখানে মোরগও লড়াই করে বেঁচে থাকে।’

অর্থ লুটপাট করে বিদেশ পালানোর সুযোগ নেই বলে হুঁশিয়ারি দেন ব্যারিস্টার রুমিন। তিনি বলেন, ‘সেই সুযোগ আর নেই। দেশেই তাদের বিচার হবে। প্রতিটা রক্তবিন্দুর প্রতিশোধ নেয়া হবে।’

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে বিদেশ পাঠানোর দাবিতে শনিবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের ফুলবাড়িয়া কমিউনিটি সেন্টারের সামনে সমাবেশ ডাকে জেলা বিএনপি।

একই সময় ছাত্রলীগও একই স্থানে সমাবেশ ডাকে। এ অবস্থায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করে প্রশাসন। শহরজুড়ে মোতায়েন হয় অতিরিক্ত পুলিশ।

এ অবস্থায় সদর উপজেলার নাটাই দক্ষিণ ইউনিয়নের বটতলী বাজারে সমাবেশ করে বিএনপি।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন ভিউ